ওড়ো অবাধে হয়ে অবাধ্য
        অর্জিত হোক যা কিছু অসাধ্য...

অনেকদিন ধরেই ভাবছি আমাদের দেশের মোবাইল ফোন সেট রিব্রান্ডিং নিয়ে একটা পোষ্ট করবো। তাই কিছুদিন গবেষনা করে একটা লিখেই ফেললাম। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

আসলে মূল ব্যাপারটা হলো, আমাদের ফোন কোম্পানিগুলো যতই বলুক ওয়ালটন বাংলাদেশে ফোন তৈরি করে আর সিম্ফনির নিজের ফ্যাক্টরি আছে, আসলে এগুলো সবই মিথ্যা। তারা সবাই চাইনিজ কোম্পানির তৈরি সেট রিব্রান্ডিং করে। এইটাই সত্যি।

যেমনঃ
1. Primo X2 = Gionee Elife E6
2. Primo X2 Mini = Gionee Elife E6 Mini
3. Primo X1 = Gionee Dream D1
1. Symphony ZI = Gionee Elife E5
2. Symphony ZII = Konka W980
3. W125 = Gionee gn708w

ব্যাপার হচ্ছে মোবাইল তৈরি করে Gionee এর মত কিছু চাইনিজ কোম্পানি। আর অন্যান্য দেশের বিভিন্ন লোকাল কোম্পানি তাদের সাথে কন্টাক্ট করে সেট নিজেদের নামে রিব্রান্ডিং করে দেশে ইমপোর্ট করে এবং দেশে এনে নিজেদের মোড়কে বাজারজাত করে।

আমাদের দেশেও ওয়ালটন, সিম্ফনি, স্ট্রবেরী মোবাইল রিব্রান্ডিং করে থাকে। ইন্ডিয়াতে মাইক্রোম্যাক্স, কার্বন মোবাইল, জোলো ইত্যাদি কোম্পানি এভাবে সেট রিব্রান্ডিং করে।

Gionee phones

walton এবং symphony মূলত Gionee থেকে রিব্রান্ডিং করে থাকে।

Gionee এর অফিশিয়াল সাইটঃ http://global.gionee.com

Gionee র স্মার্টফোনের লিস্টঃ http://global.gionee.com/eng/allphones/ এবং http://www.gsmarena.com/gionee-phones এখানে পাবেন।

কিন্তু সেট রিব্রান্ডিং করলেও কিছু এপস ব্যাবহার করে সেট মূল প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানকে ডিটেক্ট করা যায়। আজ আপনাদের সে সম্পর্কেই বলবো।

এজন্য প্রথমেই প্রয়োজন হবে একটি এপসঃ

ডাউনলোড করুনঃ  [button color=”grey” size=”normal” alignment=”none” rel=”follow” openin=”newwindow” url=”https://openload.co/f/_TysNE6D6-0/com.cpuid.cpu_z-1.23-APK4Fun.com.apk”]এখান থেকে[/button]

এরপর এপসটি সেটাপ দিন এবং ওপেন করুনঃ

এরকম একটি ইন্টারফেস পাবেন। তারপর SYSTEM এ যানঃ

IMG-20141029-WA0001

Board এ দেখুন সেটের মূল কোম্পানির নাম। যেমন walton primo x2 তে gionee89_dwe_jb2

এখন বোর্ডের নাম দিয়ে গুগোলে সার্স দিলেই কাস্টম রম সহ সেটের বিস্তারিত পেয়ে যাবেন।
উন্নত দেশগুলোতে চাইনিজ ব্রান্ডের সেট চলেনা বললে অনেক বড় ভুল হবে। কিন্তু তাদের ওখানে এভাবে রিব্রান্ডিং সেট চলেনা বললেই চলে। অনেক পশ্চিমা দেশে সেট রিব্রান্ডিং নিষিদ্ধ। কিন্তু সেসব দেশে xiaomi এর মত কিছু চাইনিজ ব্রান্ডের সেট সেভাবে বিক্রি হয়। এর পিছনে কারন হলো xiaomi চাইনিজ ব্রান্ডের সেট হলেও এর হার্ডওয়ার এবং সফটওয়ার HTC, Samsung এর মত কোম্পানির হার্ডওয়ারের মানের সমতুল্য। একারনে ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েও xiaomi বিশ্বের মধ্যে তৃতীয়  বৃহত্তম স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়েছে। xiaomi mi3 বিশ্বের সবচেয়ে ফাস্ট সেটের খেতাব পেয়েছে এবং প্রায় সব চাইনিজ সেট xiaomi এর তৈরি এনড্রয়েড রম miui ব্যাবহার করে। আমাদের দেশেরও অধিকাংশ ওয়ালটন এবং সিম্ফনি সেটে miui রম ব্যাবহার করা হয়।

xiaomi এর অফিশিয়াল সাইটঃ http://www.mi.com

সিম্ফনি বা ওয়ালটন সেটগুলোকে আমি খারাপ বলছিনা। আমি খারাপ বলছি সেটগুলো নিয়ে আমাদের বৃথা তর্ক করাকে। একজন বলে সিম্ফনির সেট ভালো, আর একজন বলে ওয়ালটনের সেট ভালো। কিন্তু আসল ব্যাপার হলো দুটা কোম্পানিই একই জায়গা থেকে সেট নেয়। তাই সিম্ফনি আর ওয়ালটনের মধ্যে যুদ্ধ লাগানোর কোন অর্থ পাই না।
কিন্তু আমার কাছে ওয়ালটনের বর্তমান বিক্রয় পরবর্তী সেবাটাকে ভালো মনে হয় আর দামটাও একটু কম মনে হয়। জাস্ট এইটুকুই। 🙂